জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম ও দাম

জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম,জ্বর হলে কি খাওয়া উচিত,জ্বর সর্দি কাশির এন্টিবায়োটিক ঔষধের নাম,জ্বর হলে কি ঔষধ খাওয়া উচিত,জ্বরের ঔষধ,জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম ও দাম,জ্বরের এন্টিবায়োটিক,জ্বর কমানোর ঔষধ,জ্বরের এন্টিবায়োটিক,জ্বরের ঔষধের নাম,জ্বর সর্দি কাশি মেডিসিন নাম,বাচ্চাদের জ্বরের এন্টিবায়োটিক ঔষধের নাম,জ্বর সর্দি কাশির এন্টিবায়োটিক, জ্বর ও সর্দি কাশি এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম কি,জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর দাম কত,বাচ্চাদের জ্বরের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের নাম সমূহ,বেশি জ্বরের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের নাম সমূহ,জ্বরের এন্টিবায়োটিক খাওয়ার নিয়ম,জ্বরের এন্টিবায়োটিক এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া,জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট বেশি খেলে কি হয়,

জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম ও দাম

সূচীপত্র :
১. জ্বর ও সর্দি কাশি এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম কি?
২. জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর দাম কত?
৩. বাচ্চাদের জ্বরের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের নাম সমূহ।
৪. বেশি জ্বরের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের নাম সমূহ।
৫. জ্বরের এন্টিবায়োটিক খাওয়ার নিয়ম।
৬. জ্বরের এন্টিবায়োটিক এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া।
৭. জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট বেশি খেলে কি হয়?

জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম

এন্টিবায়োটিক হচ্ছে কয়েক ধরনের জৈব রাসায়নিক ঔষধ যা বিভিন্ন অনুজীব কে ধ্বংস করে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। যাদের অনেক দিন পর্যন্ত অল্প অল্প জ্বর থাকে তাদেরকে অনেক সময় ডাক্তাররা জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট প্রদান করে থাকেন। যাদের প্রাথমিক ওষুধ খেয়েও জ্বর নিরাময় হয় না তাদেরকে সর্বশেষ চিকিৎসার প্রদান করার জন্য বিভিন্ন ডাক্তাররা এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট প্রদান করে থাকেন।

আরো পড়ুন : টাইফয়েড জ্বরের লক্ষণ ও চিকিৎসা

বিভিন্ন ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক ট্যাবলেট আপনি বিভিন্ন ফার্মেসীর দোকানে পেয়ে যাবেন। তবে এক এক অ্যান্টিবায়োটিক এক এক ধরনের প্রক্রিয়ায় অন্যান্য অণুজীবের বিরুদ্ধে কাজ করে। অ্যান্টিবায়োটিক সাধারণভাবে ব্যাক্টেরিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবহার হয়, ভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ করে না। তবে আমাদের শরীরের এই জ্বরকে দূর করার জন্য বিভিন্ন এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট প্রদান করা হয়।

তবে এই এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর বিভিন্ন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া আমাদের শরীরে দেখা দিতে পারে। তাই এই ওষুধগুলো সেবন করার পূর্বে অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিবেন। নিম্নে আমরা জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম উল্লেখ করেছি অতএব সম্পূর্ণ পোস্ট একবার পড়ে নিন।

জ্বর ও সর্দি কাশি এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম কি

সর্দি সাধারণত ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হলে এই অবস্থা হয়। আবার শরীরের স্বাভাবিক তাপমাত্রা থেকে বৃদ্ধি পেলে তা জ্বর হয়। অতঃপর কাশি হয় আর গলায় কিছু প্রবেশ করার কারণে। তবে এইসব রোগ নিরাময়ের জন্য বিভিন্ন ঔষধ আপনি পেয়ে যাবেন। তবে এখানে আছে উল্লেখ করেছি জ্বর সর্দি কাশির অ্যান্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম। যে ট্যাবলেট বা ওষুধগুলো গ্রহণ করলে আপনার উপরোক্ত সমস্যাগুলো অতি দ্রুত সমাধান হয়ে যাবে।র তাই ট্যাবলেট গুলোর নাম জেনে রাখা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। নিচে কয়েকটি জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম উল্লেখ করা হলো।

  • Azin 250 mg
  • AZ 250 mg
  • AZ 500 mg
  • Adiz 500 mg
  • Azin 500mg
  • Zimex 250 mg
  • Zimex 500 mg
  • Adiz 250 mg

জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর দাম কত

এই জ্বরের এন্টিবায়োটিক ওষুধগুলো সাধারণত সর্বনিম্ন ২০ টাকা থেকে ৩৫ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।  তবে এই ওষুধগুলো ট্যাবলেট এবং ক্যাপসুল আকারে পাওয়া যায়। আবার কিছু ইনজেকশন রয়েছে।  যেগুলোর দাম আরও ভিন্নতা রয়েছে। সাসপেনশন আকারে কিছু ওষুধ রয়েছে যেগুলো ১৮০ থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত। যেমন একটি ট্যাবলেট রোমাইসিন এন্টিবায়োটিক এর দাম ৩৫ টাকা। এছাড়া এই মূল্যে আরও অনেকগুলো এন্টিবায়োটিক ওষুধ পাওয়া যায়।

বাচ্চাদের জ্বরের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের নাম সমূহ

ছোট এবং বড় সবার জন্য এন্টিবায়োটিক ওষুধ রয়েছে। তবে ছোটদের জন্য আলাদা অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ রয়েছে। যেগুলো ডাক্তাররা প্রদান করে থাকেন। তবে আপনার পরিচিত কারোর বাচ্চা যদি অনেক বেশি জ্বর হয়ে থাকে। তাহলে তার জন্য অ্যান্টিবায়োটিক ঔষধ আপনি ক্রয় করতে পারবেন। তবে কোন ওষুধগুলি ক্রয় করবেন সেই অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ গুলোর নাম আমরা এখানে উল্লেখ করেছি।সেই  বাচ্চাদের জ্বরের এন্টিবায়োটিক ওষুধগুলো হচ্ছে।

  • Adiz 500 mg
  • Azin 500mg
  • AZ 250 mg
  • AZ 500 mg
  • Zimex 250 mg
  • Azin 250 mg

তবে শিশুদের এই ওষুধগুলো খাওয়ানোর পূর্বে অবশ্যই ভালো একজন ডাক্তারের শরণাপন্ন হন। এবং  প্রয়োজনীয় উপদেশ গ্রহণ করে শিশুকে ওষুধগুলো সেবন করান।

বেশি জ্বরের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের নাম সমূহ

এছাড়াও এই এন্টিবায়োটিক ঔষধ গুলোর বিভিন্ন ধরন এবং কার্যকার্য। একজন রোগীর শরীরে অবস্থা অনুযায়ী ডাক্তারের বিভিন্ন রকমের এন্টিবায়োটিক রোগীকে প্রদান করে থাকেন। নিচে আরো কয়েকটি জ্বরের এন্টিবায়োটিক ওষুধের নাম উল্লেখ করা হলো।

  • সেফট্রিয়াক্সোন (ইনজেকশন)
  • সেফিক্সিম (ক্যাপসুল)
  • সেফুরক্সিম + ক্লাভুলানিক এসিড
  • সিপ্রোফ্লক্সাসিন
  • এজিথ্রোমাইসিন।

তবে এই জ্বরের এন্টিবায়োটিক ওষুধের মধ্যে কিছু ট্যাবলেট ও কিছু ইনজেকশন রয়েছে। ডাক্তাররা রোগীর শরীরের অবস্থা অনুযায়ী এগুলো প্রদান করে থাকেন।

জ্বরের এন্টিবায়োটিক খাওয়ার নিয়ম

বিভিন্ন ওষুধ সেবন করার পাশাপাশি, এই এন্টিবায়োটিক ওষুধ গুলো সে ধরনের কিছু নিয়ম এবং নির্বাচনাবলী রয়েছে। যেগুলো অবশ্যই মেনে চলা উচিত, কেননা এই ওষুধের বিভিন্ন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে। যেগুলো অনিয়মিত সেবনে ফলে আপনার শরীরে মারাত্মক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে।  এমন কি মৃত্যু ঝুকি হতে পারে। তাই সঠিক নিয়ম মেনে জ্বরের এন্টিবায়োটিক ঔষধ গুলো খাওয়া উচিত।  চলুন জ্বরের এন্টিবায়োটিক ঔষধ গুলোর খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জেনে নেই।

  • এজিথ্রোমাইসিন ট্যাবলেট: এটি প্রতিদিন একবার করে মোট সাত দিন খেতে হবে বা খেতে পারবেন।
  • এরিথ্রোমাইসিন ট্যাবলেট: তবে শিশুর ক্ষেত্রে প্রতি কেজিতে 50mg করে প্রদান করতে হবে এবং দিনে চারবার। আর এই এন্টিবায়োটিক ঔষধকে একটি শিশুকে সাত দিনের বেশি সময় ধরে এন্টিবায়োটিক খাওয়ানো উচিত নয়। আর একটি পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তির জন্য উপস্থিত একটি ট্যাবলেট খেলে হয়ে যাবে।
  • ডক্সিসাইক্লিন ক্যাপসুল: একজন শিশুর ক্ষেত্রে  এই ট্যাবলেট টি ব্যবহার করা উচিত নয়। একটি পূর্ণবয়স্ক লোকের জন্য একটি ক্যাপসুল খেলা হয়ে যাবে।
  • অ্যামোক্সিসিলিন ক্যাপসুল দিনে তিন থেকে চার বার মোট সাত দিন খেতে হবে।
  • সেফিক্সিম: কমপক্ষে প্রতি  দিনে এক থেকে দুই বার মোট সাত দিন।

জ্বরের এন্টিবায়োটিক এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

এই এন্টিবায়োটিক ওষুধগুলো আমাদের শরীরের বিরূপ প্রভাব করতে পারে।  তাই এই ওষুধগুলো সাবধানতার সাথে আমাদের গ্রহণ করা উচিত।  তবে যে পার্শ্ববর্তী গুলো আমাদের শরীরে এই এন্টিবায়োটিক ঔষধ সেবন করার কারণে দেখা দেয় তা হচ্ছে।

  • ত্বকের লালত্ব ভাব (Redness Of Skin)
  • জ্বর (Fever)
  • স্বাদের পরিবর্তন (Change In Taste)
  • কোষ্ঠকাঠিন্য (Constipation)
  • মাথা ঘোরা (Dizziness)
  • মাথা ব্যাথা (Headache)
  • বমি ভাব বা বমি (Nausea Or Vomiting)
  • ডায়রিয়া (Diarrhoea)
  • পেটে ব্যথা (Abdominal Pain)
  • বিশৃঙ্খলা (Confusion)

এন্টিবায়োটিক ঔষধ সেবন করার কারণে আপনার শরীরে উল্লেখিত লক্ষণ গুলো ছাড়াও আরো বিভিন্ন লক্ষণ দেখা দিতে পারে।

জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট বেশি খেলে কি হয়

আমাদের শরীরে অনেক ব্যাকটেরিয়া রয়েছে যা উপকারী এবং অপকারী। তবে এই এন্টিবায়োটিক ওষুধগুলো অতিরিক্ত সেবন করার ফলে আমাদের অনেক ক্ষতি হতে পারে। তবে এই এন্টিবায়োটিক ওষুধ টি অতিরিক্ত গ্রহণ করলে শরীরে একটি অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স তৈরি হয়ে যায়, যার ফলে যে অ্যান্টিবায়োটিকগুলি প্রয়োজনেও কাজ করা বন্ধ করে দেয়। তারা এই অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ অতিরিক্ত  গ্রহণ করার ফলে গ‍্যাস্ট্রো সিস্টেমকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে, আবার লিভার ও কিডনি কেউ ড্যামেজ করতে পারে। 

ট্যাগ : জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম,জ্বর হলে কি খাওয়া উচিত,জ্বর সর্দি কাশির এন্টিবায়োটিক ঔষধের নাম,জ্বর হলে কি ঔষধ খাওয়া উচিত,জ্বরের ঔষধ,জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম ও দাম,জ্বরের এন্টিবায়োটিক,জ্বর কমানোর ঔষধ,জ্বরের এন্টিবায়োটিক,জ্বরের ঔষধের নাম,জ্বর সর্দি কাশি মেডিসিন নাম,বাচ্চাদের জ্বরের এন্টিবায়োটিক ঔষধের নাম,জ্বর সর্দি কাশির এন্টিবায়োটিক, জ্বর ও সর্দি কাশি এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম কি,জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর দাম কত,বাচ্চাদের জ্বরের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের নাম সমূহ,বেশি জ্বরের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের নাম সমূহ,জ্বরের এন্টিবায়োটিক খাওয়ার নিয়ম,জ্বরের এন্টিবায়োটিক এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া,জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট বেশি খেলে কি হয়,

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *