মুয়াজ ইবনে জাবাল রাঃ এর জীবনী

হযরত মুয়ায় ইবনে জাবাল,হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল,মুয়াজ ইবনে জাবাল এর জীবনী,মুয়াজ ইবনে জাবাল,মুয়াজ ইবনে জাবাল রা,মুআজ বিন জাবাল,ইবনে জাবাল, মুয়াজ ইবনে জাবাল রা শাসক জীবনী,মুয়াজ বিন জাবাল,হযরত মুয়াজ রাঃ এর জীবনী,হযরত মুয়াজ,মুয়াজ ইবনে জাবাল,হযরত মুয়াজ বিন জাবাল রা এর জীবনী,হযরত মুয়াজ রা,hazrat muadh ibn jabal,হযরত সাদ বিন মুয়াজ রাঃ,

মুয়াজ ইবনে জাবাল রাঃ এর জীবনী

হযরত মুয়ায ইবনে জাবাল (রা) মহানবী (স)-এর বিশিষ্ট সাহাবী। তিনি হাদীস বর্ণনা ও ইসলামের অন্যান্য শাখায় কৃতিত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। তিনি ছিলেন একজন আনসারী সাহাবী।

১. নাম ও পরিচিতি :

তাঁর নাম মুয়ায, উপনাম আবু আবদুল্লাহ, পিতার নাম জাবাল। মুয়ায (রা) মদিনার বিখ্যাত খাযরাজ
বংশে জন্মগ্রহণ করেন।

২. নসবনামা :

তাঁর নসবনামা হলো, মুয়ায ইবনে জাবাল ইবনে আমর ইবনে আউস ইবনে আয়েয ইবনে আদী ইবনে কাব ইবনে আমর ইবনে উদাই ইবনে সাদ ইবনে আলী ইবনে আসাদ ইবনে সারাহ ইবনে ইয়াযিদ ইবনে জাশম ইবনে খাযরাজ আকবর আল আনসারী।

৩. ইসলাম গ্রহণ :

হযরত মুয়ায ইবনে জাবাল (রা) ১৮ বছর বয়সে ইসলাম গ্রহণ করেন। দ্বিতীয় আকাবায় রাসূল (স)-এর হাতে বাইয়াত গ্রহণের মজলিসে তিনি উপস্থিত ছিলেন। ঐ আকাবাতে মুয়ায ইবনে জাবালসহ সর্বমোট সত্তর জন আনসার উপস্থিত ছিলেন।

৪. যুদ্ধে অংশগ্রহণ :

বদর যুদ্ধ ছাড়া অন্যান্য সকল যুদ্ধে তিনি অংশগ্রহণ করেন। কেউ কেউ বলেন, যেহেতু তিনি দ্বিতীয় আকাবায় ইসলাম গ্রহণ করেন, সেহেতু তিনি বদর যুদ্ধেও অংশগ্রহণ করার সৌভাগ্য লাভ করেছেন।

৫. রাসুল (স)-এর সাহচর্য লাভ:

তিনি সর্বদা রাসূল (স)-এর স্নেহ ও আদর লাভে ধন্য হয়েছেন। উঠতে বসতে সর্বক্ষণ রাসূল (স)-এর নিকট শিক্ষার সুযোগ লাভ করেছেন। রাসূল (স) তাঁকে এত মহব্বত করতেন যে, অধিকাংশ সময় তাঁকে নিজের বাহনের পেছনে বসার সুযোগ দান করে নানা রকম ইলম ও মারেফত শিক্ষা দিতেন।

৬. গুণাবলি :

হযরত মুয়ায (রা) ছিলেন অনন্য গুণাবলির অধিকারী। সততা, মহত্ত্ব, বীরত্ব, কোমলতা ও নৈতিকতা ছিল তাঁর চরিত্রের ভূষণ । আকাবার দ্বিতীয় শপথের সময় রাসূল (স) তাঁকে লক্ষ্য করে বলেন- نِعْمَ الرَّجُلُ مُعَاذُ بْن جَبَلٍ অর্থাৎ, মুয়ায ইবনে জাবাল কতই না উত্তম পুরুষ।

৭. রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন :

মক্কা বিজয়ের পর রাসূল (স) তাঁকে ইয়েমেনের শাসনকর্তা নিযুক্ত করেন। এছাড়া হযরত আবু বকর এবং ওমর (রা)-এর শাসনামালেও তিনি ইসলামের নিরলস সেবক হিসেবে কাজ করে যান।

৮. হাদীস বর্ণনা :

তিনি রাসূল (স) হতে সর্বমোট ১৫৭টি হাদীস বর্ণনা করেন। সাহাবী ও তাবেয়ীদের অনেকে তাঁর নিকট হতে হাদীস বর্ণনা করেছেন।

৯. ইন্তেকাল :

হযরত মুয়ায ইবনে জাবাল (রা) ১৮ হিজরীতে ৩৮ বছর বয়সে হযরত ওমর (রা)-এর শাসনামালে طاعون عمواس তথা প্লেগ রোগে আক্রান্ত হয়ে বায়তুল মাকদাস ও দামেশক-এর মধ্যবর্তী এবং জর্দান নদীর তীরবর্তী ‘বীসান‘ নামক স্থানে ইন্তেকাল করেন। এ রোগে তাঁর দু’ন্ত্রী ও পুত্র আবদুর রহমানও মারা যান।

আরো পড়ুন :

হযরত আব্বাস রাঃ এর জীবনী

হযরত ওমর রাঃ এর জীবনী

হযরত আয়েশা রাঃ এর জীবনী

আবু হুরায়রা রাঃ এর জীবনী

হযরত আবু বকর রা: এর জীবনী

হযরত ওসমান রাঃ এর জীবনী

হযরত আলী রাঃ এর জীবনী 

ট্যাগ সমূহ : হযরত মুয়ায় ইবনে জাবাল,হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল,মুয়াজ ইবনে জাবাল এর জীবনী,মুয়াজ ইবনে জাবাল,মুয়াজ ইবনে জাবাল রা:,মুআজ বিন জাবাল,ইবনে জাবাল, মুয়াজ ইবনে জাবাল রা শাসক জীবনী,মুয়াজ বিন জাবাল,হযরত মুয়াজ রাঃ এর জীবনী,হযরত মুয়াজ,মুয়াজ ইবনে জাবাল,হযরত মুয়াজ বিন জাবাল রা: এর জীবনী,হযরত মুয়াজ রা,hazrat muadh ibn jabal

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *