ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও চিকিৎসা

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও চিকিৎসা

ডেঙ্গু জ্বরকেই ডেঙ্গু বলা হয়, এটি একটি মশা-বাহিত ভাইরাল সংক্রমণ যা বিশ্বের অনেক অংশে, বিশেষ করে গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং উপ-ক্রান্তীয় অঞ্চলে একটি উল্লেখযোগ্য স্বাস্থ্য হুমকির সৃষ্টি করে। এটি অনুমান করা হয় যে প্রতি বছর 390 মিলিয়নেরও বেশি মানুষ ডেঙ্গু ভাইরাসে আক্রান্ত হয়। ডেঙ্গু জ্বরের কারণ, লক্ষণ এবং চিকিৎসা বোঝা প্রতিরোধ ও কার্যকর ব্যবস্থাপনার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। নিচে আলোচনা করা হলো-

ডেঙ্গু জ্বরের কারণ

ডেঙ্গু জ্বর ডেঙ্গু ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট হয়, যা প্রাথমিকভাবে সংক্রামিত স্ত্রী এডিস মশা, বিশেষ করে এডিস ইজিপ্টাই কামড়ের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে ছড়ায়। এই মশাগুলি সাধারণত শহুরে এবং আধা-শহুরে এলাকায় পাওয়া যায়, পুরানো টায়ার, ফুলের পাত্র এবং বৃষ্টিতে ভরা পাত্রের মতো স্থির জলের উত্সগুলিতে বংশবৃদ্ধি করে।

আরো পড়ুন : জ্বর কেন হয় ? কত তাপমাত্রাকে জ্বর বলে

ডেঙ্গু ভাইরাসের ৪ টি স্বতন্ত্র সেরোটাইপ আছে। যথা, (DEN-1, DEN-2, DEN-3 ও DEN-4)। একটি সেরোটাইপের সংক্রমণ সেই নির্দিষ্ট সেরোটাইপের আজীবন অনাক্রম্যতা প্রদান করে, কিন্তু পরবর্তীতে অন্যান্য সেরোটাইপের সংক্রমণের ফলে মারাত্মক ডেঙ্গু হতে পারে, যা ডেঙ্গু হেমোরেজিক ফিভার নামে পরিচিত।

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ

ডেঙ্গু জ্বর হালকা থেকে গুরুতর পর্যন্ত হতে পারে। তবে এর লক্ষণগুলি সংক্রামিত মশা কামড়ানোর ৪-১০ দিন পরে দেখা যায়। সাধারণ লক্ষণগুলি হলো-

১. রক্তপাত
কিছু ডেঙ্গু রোগীর হালকা রক্তপাত হতে পারে। যেমন, নাক থেকে রক্তপাত, মাড়ি থেকে রক্তপাত বা সহজে ঘা হয়।

২. উচ্চ জ্বর
ডেঙ্গুর একটি বৈশিষ্ট্য হলো আকস্মিক এবং উচ্চ-গ্রেডের জ্বর । এটি প্রায়ই গুরুতর মাথাব্যথা দ্বারা অনুষঙ্গী হয়।

৩. ত্বকের ফুসকুড়ি
একটি ফুসকুড়ি, যা চুলকানি হতে পারে, প্রায়শই জ্বর শুরু হওয়ার কয়েক দিন পরে দেখা যায়। ফুসকুড়ি সাধারণত বাহু ও পায়ে শুরু হয় এবং শরীরের বাকি অংশে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

৪. গুরুতর জয়েন্ট এবং পেশী ব্যথা
রোগীর পেশী এবং জয়েন্টগুলিতে প্রচন্ড ব্যথার কারণে ডেঙ্গুকে “ব্রেকবোন ফিভার” বলা হয়।

৫. বমি বমি ভাব এবং বমি
কিছু ডেঙ্গু রোগীর বমি বমি ভাব, বমি এবং পেটে ব্যথাও ডেঙ্গুর সাধারণ লক্ষণ।

৬. চোখের পিছনে ব্যথা
চোখের পিছনে ব্যথা, প্রায়শই গভীর ব্যথা হিসাবে বর্ণনা করা হয়, এটি ডেঙ্গুর আরেকটি সাধারণ লক্ষণ।

৭. ক্লান্তি
প্রায়শই জ্বর কমার পরে চরম ক্লান্তি এবং দুর্বলতা কয়েক সপ্তাহ ধরে থাকে।

গুরুতর ক্ষেত্রে, এই রোগটি ডেঙ্গু হেমোরেজিক ফিভার বা ডেঙ্গু শক সিন্ড্রোমে পরিণত হতে পারে, যা জীবন-হুমকির মধো পরতে পারে এবং এর অবিলম্বে চিকিৎসার প্রয়োজন। গুরুতর ডেঙ্গুর সতর্কতা লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে অবিরাম বমি, তীব্র পেটে ব্যথা, মাড়ি থেকে রক্তপাত, দ্রুত শ্বাস, ক্লান্তি এবং অস্থিরতা।

রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা

ডেঙ্গু জ্বর নির্ণয়ের জন্য সাধারণত ক্লিনিকাল মূল্যায়ন এবং পরীক্ষাগার পরীক্ষার সমন্বয় জড়িত থাকে। রক্ত পরীক্ষা, যেমন, PCR (পলিমারেজ চেইন প্রতিক্রিয়া) পরীক্ষা, ডেঙ্গু NS1 অ্যান্টিজেন পরীক্ষা বা ভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে পারে।

ডেঙ্গু জ্বরের চিকিৎসা প্রাথমিকভাবে সহায়ক, কারণ এই রোগের জন্য কোনও নির্দিষ্ট অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ নেই। তবে নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি নেওয়া হয়। যথা-

১. ব্যথা এবং জ্বর ব্যবস্থাপনা
ওভার-দ্য-কাউন্টার ব্যথা উপশমকারী যেমন অ্যাসিটামিনোফেন (প্যারাসিটামল) জ্বর কমাতে এবং ব্যথা উপশম করতে ব্যবহৃত হয়। আইবুপ্রোফেনের মতো নন-স্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ড্রাগ (NSAIDs) এড়িয়ে চলুন, কারণ তারা রক্তপাতের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

২. তরল প্রতিস্থাপন
পর্যাপ্ত হাইড্রেশন বজায় রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ডিহাইড্রেশন প্রতিরোধ করার জন্য রোগীদের ওরাল রিহাইড্রেশন সলিউশন, পানি এবং পরিষ্কার তরল পান করতে উৎসাহিত করা হয়।

৩. হাসপাতালে ভর্তি
গুরুতর ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীদের, বমি, পেটে ব্যথা এবং রক্তপাত ইত্যাদি লক্ষণ দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, তাদের প্রায়ই নিবিড় পর্যবেক্ষণ এবং শিরায় তরল গ্রহণের জন্য হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হয়।

৪. বিশ্রাম
ডেঙ্গুতে চরম ক্লান্তি সৃষ্টি করতে পারে তাই পুনরুদ্ধারের জন্য পর্যাপ্ত বিশ্রাম অপরিহার্য।

৫. মশা নিয়ন্ত্রণ
আপনার বাড়ির আশেপাশে স্থির জল সংগ্রহ করে এমন পাত্রগুলি খালি করে মশার প্রজনন স্থানগুলিকে নির্মূল করুন।

৬. ডেঙ্গু জ্বর প্রতিরোধ
যেসব এলাকায় ডেঙ্গুর প্রকোপ রয়েছে সেখানে প্রতিরোধই মুখ্য। সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে এখানে কিছু ব্যবস্থা রয়েছে্।

৭. প্রতিরক্ষামূলক পোশাক
লম্বা প্যান্ট, লম্বা-হাতা শার্ট পড়ুন এবং বাহিরে থাকার সময় মশা তাড়ানোর ওষুধ ব্যবহার করুন। বিশেষ করে মশার কার্যকলাপের সময় (সকাল এবং শেষ বিকেলে)।

৮. সম্প্রদায়ের প্রচেষ্টা
ডেঙ্গু প্রতিরোধ সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে এবং মশার প্রজনন স্থানগুলি হ্রাস করতে সম্প্রদায়গুলি একসাথে কাজ করতে পারে।

৯. মশারি ব্যবহার
রাতে মশার কামড় রোধ করতে মশারি ব্যবহার করুন।

ডেঙ্গু জ্বর বিশ্বের অনেক অংশে একটি উল্লেখযোগ্য জনস্বাস্থ্য উদ্বেগ হিসাবে রয়ে গেছে। রোগটি ঘটলে প্রতিরোধ এবং পরিচালনা উভয়ের জন্যই এর কারণ, লক্ষণ এবং চিকিত্সা বোঝা গুরুত্বপূর্ণ। যদিও ডেঙ্গু একটি গুরুতর এবং এমনকি প্রাণঘাতী অসুস্থতা হতে পারে, তবে প্রাথমিক রোগ নির্ণয় এবং উপযুক্ত চিকিৎসা পরিচর্যা সম্পূর্ণ পুনরুদ্ধারের সম্ভাবনাকে উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নত করতে পারে।

ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মশার সংখ্যা নিয়ন্ত্রণ এবং প্রতিরোধ সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য জনস্বাস্থ্যের প্রচেষ্টা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও উপসর্গ

  • জ্বর ও ঠান্ডা লাগা
  • মাথাব্যথা
  • গ্রন্থি ফুলে যাওয়া
  • চোখের পিছনে ব্যথা
  • পেশি, হাড় বা জয়েন্টে ব্যথা
  • বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া
  • গায়ে লাল রঙের ফুসকুড়ি ওঠা।

ডেঙ্গু জ্বর গুরুতর হওয়ার লক্ষণ

  • প্রচণ্ড পেট ব্যাথা
  • প্রস্রাবে রক্ত
  • মলে বা বমিতে রক্ত
  • মাড়ি বা নাক থেকে রক্ত পড়া
  • শ্বাসকষ্ট।
  • ত্বকের নিচে রক্তপাত
  • ক্রমাগত বমি হওয়া

সতর্কতা
ডেঙ্গু জ্বর থেকে বাঁচতে চাইলে এর বিস্তার রোধে সচেতন হতে হবে। সেজন্য মশার প্রজনন স্থান নির্মূল করতে হবে। এডিস মশা জমা পরিষ্কার পানিতে বংশবৃদ্ধি করে। তাই যেসব জায়গায় পানি জমে থাকতে পারে তা নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে। পানি রাখা হয় এমন পাত্রগুলো ঢেকে রাখতে হবে। তিনদিনের বেশি পানি জমিয়ে রাখা যাবে না। লম্বা হাতার পোশাক বেছে নেবেন। বাজারে কিছু ক্রিম পাওয়া যায় যেগুলো মশা দূরে রাখতে কাজ করে। এ ধরনের ক্রিম হাত ও পায়ে ব্যবহার করতে পারেন।

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। নিজেকে হাইড্রেটেড রাখতে হবে। কোনোভাবেই শরীরে পানির ঘাটতি হতে দেওয়া যাবে না। দিনে অন্তত ৩ থেকে ৪ লিটার পানি পান করতে হবে। সেইসঙ্গে দিনে একটি করে ডাবের পানি খেতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া নিজে নিজে কোনো ওষুধ খাবেন না।

ট্যাগ : ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ,ডেঙ্গু জ্বর কত দিন থাকে,ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও চিকিৎসা,ডেঙ্গু জ্বর,ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষন,ডেঙ্গু জ্বর প্রতিরোধে করণীয়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *