জ্বর কমানোর দোয়া ও আমল

জ্বর কমানোর দোয়া,ব্যাথ্যায় করণীয় আমল,বাচ্চার জ্বর কমানোর দোয়া,ব্যাথা কমানোর দোয়া,দ্রুত জ্বর কমানোর দোয়া,শিশুর জ্বর কমানোর দোয়া,জ্বর কমানোর দোয়া বাংলা,সন্তানের জ্বর কমানোর দোয়া,

জ্বর কমানোর দোয়া

যারা জ্বর ও ব্যাথ্যায় আক্রান্ত হচ্ছেন, তাদের প্রথম দায়িত্ব হচ্ছে যথাযথ চিকিৎসা গ্রহণ করা। পাশাপাশি জ্বর ও ব্যাথ্যা মুক্তিতে আমল এবং দোয়া করা। জ্বর-ব্যাথ্যায় আমল ও দোয়া করার বিষয়টি হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। জ্বর অথবা ব্যাথ্যায় করণীয় আমল ও দোয়া কী? এই বিষয়ে নিচে আলোচনা করা হলো-

জ্বরের সময় পড়ার দোয়া

হজরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু বর্ণনা করেন, নিশ্চয়ই নবী করীম (সাঃ) জ্বর ও গলা ব্যাথায় এভাবে দোয়া করতে শিক্ষা দিতেন-

জ্বর কমানোর দোয়া,ব্যাথ্যায় করণীয় আমল,বাচ্চার জ্বর কমানোর দোয়া,ব্যাথা কমানোর দোয়া,দ্রুত জ্বর কমানোর দোয়া,শিশুর জ্বর কমানোর দোয়া,জ্বর কমানোর দোয়া বাংলা,সন্তানের জ্বর কমানোর দোয়া,


উচ্চারণ : ‘বিসমিল্লাহিল কাবির, আউজুবিল্লাহিল আজিম, মিন শাররি কুল্লি ইরকিন নায়্যার, ওয়া মিন শাররি হাররিন নার।’ (মুজামুল কাবির, তাবারানি, তিরমিজি)
অর্থ : মহান আল্লাহর নামে, দয়াময় আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাই, শিরা-উপশিরায় শয়তানের আক্রমণ থেকে। শরীরের আগুনের উত্তাপের মন্দ প্রভাব থেকে।’

আরো পড়ুন : জ্বরের এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট এর নাম ও দাম

ব্যাথ্যামুক্ত থাকতে হাদিসের একাধিক দোয়া ও আমলের নির্দেশনা

১. হজরত উসমান বিন আবুল আস আস-সাকাফি রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, আমি নবী করীম (সাঃ) এর কাছে মারাত্মক ব্যথা নিয়ে উপস্থিত হলাম, যে ব্যথা আমাকে প্রায় অকেজো করে ফেলেছিল। নবী করীম (সাঃ) আমাকে বলেন- ‘তুমি তোমার ডান হাত ব্যথার স্থানে রাখো, ৩ বার- بِسْمِ اللَّهِ বিসমিল্লাহ বলো এবং ৭ বার বল-

أَعُوذُ بِعِزَّةِ اللَّهِ وَقُدْرَتِهِ مِنْ شَرِّ مَا أَجِدُ وَأُحَاذِرُ
বাংলা উচ্চারণ : বিসমিল্লাহি আউজু বিইজ্জাতিল্লাহি ওয়া কুদরাতিহি মিন শাররি মা আঝিদু ওয়া উহাজিরু।
বাংলা অর্থ : আল্লাহর নামে আমি আল্লাহর অসীম সম্মান ও তাঁর বিশাল ক্ষমতার ওসিলায় আমার অনুভূত এই ব্যথার ক্ষতি থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করি।’ (ইবনে মাজাহ)

নিয়ম : ব্যথার স্থানে ডান হাত রেখে ৩ বার বিসমিল্লাহ বলা এবং ৭ বার এ দোয়া পড়তে থাকা আর ব্যথার স্থান মর্দন করা।

২. হজরত উসমান ইবনু আবুল আস আস-সাকাফি রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমার কাছে এলেন। আমি তখন ধ্বংসাত্মক ব্যথার কারণে অস্থির ছিলাম। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, ব্যথার জায়গাতে তোমার ডানহাত দিয়ে ৭ বার মর্দন কর এবং বল-

بِسْمِ اللَّهِ أَعُوذُ بِعِزَّةِ اللَّهِ وَقُدْرَتِهِ مِنْ شَرِّ مَا أَجِدُ وَأُحَاذِرُ
বাংলা উচ্চারণ : ‘বিসমিল্লাহি আউজু বিইজ্জাতিল্লাহি ওয়া কুদরাতিহি মিন শাররি মা আঝিদু ওয়া আহাজিরু।’
বাংলা অর্থ : ‘আল্লাহর নামে আমি তাঁর ইজ্জাত ও সম্মান, কুদরাত ও শক্তি এবং তাঁর রাজত্ব, সার্বভৌমত্ব ও কর্তৃত্বের কাছে আমার এই কষ্ট হতে মুক্তি প্রার্থনা করছি।’

বর্ণনাকারী বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নির্দেশনা অনুযায়ী ডান হাত দিয়ে ব্যথার স্থানে মর্দন করছিলাম আর ৭ বার এ দোয়া পড়লাম। তাতে আল্লাহ তাআলা আমার পুরো ব্যথাই নিরাময় করে দিলেন। আমি এর পর থেকে আমার পরিবারের লোকদের এবং অন্যান্যদেরও এ নিয়মে আমল করার জন্য বলে আসছি।’ (তিরমিজি, ইবনে মাজাহ, মুসলিম, আবু দাউদ, মুসনাদে আহমাদ)

নিয়ম : ডান হাত দিয়ে ব্যথার স্থানে মর্দন করতে থাকা এবং সাতবার এ দোয়া পড়া।

৩. হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন, কোনো ব্যক্তি তার শরীরের কোনো অঙ্গে যদি ব্যথা অনুভব করতো অথবা শরীরের কোনো স্থানে ফোড়া দেখা দিতো বা জখম হতো তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম (ব্যথার স্থানে) আঙ্গুল বুলাতে বুলাতে বলতেন-

জ্বর কমানোর দোয়া,ব্যাথ্যায় করণীয় আমল,বাচ্চার জ্বর কমানোর দোয়া,ব্যাথা কমানোর দোয়া,দ্রুত জ্বর কমানোর দোয়া,শিশুর জ্বর কমানোর দোয়া,জ্বর কমানোর দোয়া বাংলা,সন্তানের জ্বর কমানোর দোয়া,


বাংলা উচ্চারণ : ‘বিসমিল্লাহি তুরবাতু আরদিনা বিরিকাতি বাদিনা লি-ইউশফা সাক্বিমুনা বি-ইজনি রাব্বিনা।’
বাংলা অর্থ : ‘আল্লাহর নামে আমাদের জমিনের মাটি এবং আমাদের কারো থুথুর সংমিশ্রণে আমাদের রবের নির্দেশে আমাদের অসুস্থ ব্যক্তিকে আরোগ্য দান কর।’ (বুখারি ও মুসলিম)

নিয়ম : মাটিতে থুথু ফেলে তা নিয়ে ব্যথার স্থানে মর্দন করা আর এ দোয়া পড়া।

৪. হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম (ব্যথার স্থানে) ঝাড়-ফুঁক করতেন। আর এ দোয়া পড়তেন-

اَمْسَحْ الْبَاسَ رَبَّ النَّاسِ بِيَدِكَ الشِّفَاءُ لاَ كَاشِفَ لَه إِلاَّ أَنْتَ
বাংলা উচ্চারণ : ‘‌আমসাহল বাসা রাব্বান নাসি বিয়াদিকাশশিফা উূ লা কাশিফা লাহু ইল্লা আংতা।’
বাংলা অর্থ : ‘হে মানুষের পালনকর্তা! ব্যথা দূর করে দাও। আরোগ্য দানের ক্ষমতা শুধু তোমারই হাতে। এ ব্যথা তুমি ছাড়া আর কেউ দূর করতে পারে না।’ (বুখারি)

নিয়ম : ব্যথা হলে এ দোয়া পড়তে থাকা।

৫. মাথা ব্যাথায় এ দোয়া পড়া-

لَا يُصَدَّعُونَ عَنْهَا وَلَا يُنزِفُونَ
উচ্চারণ : লা ইউসাদ্দাউনা আনহা ওয়া লা ইউনযিফুন।’

মাথা ব্যাথা এবং জ্বরের সময় যতবার ইচ্ছা এ দোয়া পড়লে মহান আল্লাহ ওই ব্যক্তিকে জ্বর ও মাথা ব্যাথা থেকে হেফাজত করবেন।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে জ্বর ও মাথা ব্যাথায় যথাযথ চিকিৎসা গ্রহণের পাশাপাশি দ্রুত নিরাময়ে উল্লেখিত দোয়াগুলো বেশি বেশি পড়ার তাওফিক দান করুন। জ্বর ও মাথা ব্যাথা থেকে মুক্তি দিন। (আমিন)

ট্যাগ : জ্বর কমানোর দোয়া,ব্যাথ্যায় করণীয় আমল,বাচ্চার জ্বর কমানোর দোয়া,ব্যাথা কমানোর দোয়া,দ্রুত জ্বর কমানোর দোয়া,শিশুর জ্বর কমানোর দোয়া,জ্বর কমানোর দোয়া বাংলা,সন্তানের জ্বর কমানোর দোয়া,জ্বর কমানোর দোয়া,ব্যাথ্যায় করণীয় আমল,বাচ্চার জ্বর কমানোর দোয়া,ব্যাথা কমানোর দোয়া,দ্রুত জ্বর কমানোর দোয়া,শিশুর জ্বর কমানোর দোয়া

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *